Connect with us

পশ্চিমবঙ্গ

উত্তরপ্রদেশে বাঙালি শরণার্থীরা জমি পেলে CAA কেন, প্রশ্ন বাংলাপক্ষের

Published

on

কলকাতা: এখনও কার্যকর হয়নি সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন। এরই মাঝে পাকিস্তান থেকে আগত হিন্দু ব্যক্তিদের পুনর্বাসন দেওয়া শুরু করল বিজেপি সরকার। আরও বড় বিষয় হচ্ছে সুবিধা প্রাপ্ত সকলেই বাঙালি। যারা অর্ধ শতক আগে ভারতে এসেছিলেন পূর্ব পাকিস্তান থেকে।

এই নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিয়েছে ভারতের বাঙালির জাতীয় সংগঠন বাংলাপক্ষ। ভারতের বাঙালির অধিকারের আদায়ে লড়াই করা এই সংগঠন বরাবরই বিজেপির বিরুদ্ধে সরব। নানাবিধ ইস্যুতে কাঠগড়ায় তুলে থাকে বিজেপিকে। বঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি বিরোধী প্রচারে ঝড় তুলেছিল বাংলাপক্ষ। বাঙালির স্বার্থে অন্য রাজনৈতিক দলের বিরোধিতাতেও পিছপা হয় না বাংলাপক্ষ।

উত্তরপ্রদেশে বাঙালি শরণার্থীদের জমি দেওয়ার বিষয়টিকে রাজনৈতিক চাল হিসেবে দেখছে বাংলাপক্ষ। আর মাস খানেক পরেই ওই রাজ্যে বিধানসভা ভোট রয়েছে। আগামী ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে এই উত্তরপ্রদেশের ভোট বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। সেই ভোটের আগে বাঙালি প্রীতি দেখিয়ে বিজেপি নাটক করছে বলে কটাক্ষ করেছেন বাংলাপক্ষের নেতা কৌশিক মাইতি।

তিনি বলেছেন, “উত্তরপ্রদেশে বাঙালিকে দুর্গাপুজো করতে দেওয়া হয় না স্বাধীনভাবে। ওই রাজ্যের মন্ত্রীর ছেলে দুর্গাপুজোর মণ্ডপ ভেঙে দিয়েছিল। দিল্লি লাগোয়া নয়ডার বাঙালিদের দুর্গাপুজোয় বাধা দেওয়া হয় আমিষ খাওয়ার অজুহাতে। এটাই বিজেপির চরিত্র। এখন ভোটের মুখে বাঙালিদের জমি দিয়ে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে চাইছে যোগী আদিত্যনাথ পরিচালিত বিজেপির সরকার। এটা নাটক ছাড়া আর কিছুই না।”

একই সঙ্গে কৌশিক মাইতি আরও বলেছেন, “এখনও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন কার্যকর হয়নি। তার আগেই বাঙালি শরণার্থীদের চিহ্নিত করে জমি দেওয়া হচ্ছে। তাহলে ওই আইনের আর কোনও প্রয়োজন নেই। যেটা আমরা আগেও বলেছি। পশ্চিমবঙ্গের সাংসদ নীশিথ প্রামাণিক এবং সুব্রত ঠাকুর কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হয়েছেন, তাঁদের নাগরিকত্ব নিয়েও আমাদের কোনও প্রশ্ন নেই। সিএএ ছাড়া মন্ত্রীও হতে পেরেছে বাঙালি, তাই ওই আইনের প্রয়োজনীয়তা নেই বলেই আমরা মনে করি।”

অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য এবং পড়শি রাষ্ট্রগুলি থেকে আগত সংখ্যলঘুদের আশ্রয় দিতে ওই আইন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে কেন্দ্র। এই বিষয়ে কৌশিক মাইতির বক্তব্য, “অনুপ্রবেশকারী চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। কিন্তু তার জন্য বাকি সাধারণ মানুষদের উপরে যেন চাপ সৃষ্টি না হয়। আর সীমান্ত পাহাড়া দেওয়া দেওয়া বিএসএফ জওয়ানদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া উচিত অনুপ্রবেশ রুখতে ব্যর্থ হওয়ার জন্য।”

Continue Reading
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

পশ্চিমবঙ্গ

মশারি টাঙিয়ে মিছিল করে ভোটের প্রচার বিজেপির

Published

on

By

কলকাতা: মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গু বা ম্যালেরিয়ার প্রকোপ রয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। বিভিন্ন সময়ে প্রশ্ন উঠেছে ওই রোগ মোকাবিলায় সরকারের ভূমিকা নিয়ে। বিরোধীরা অনেক আন্দোলনও করেছে। এবার সেই বিষয়যটিকে হাতিয়ার করে অভিনব প্রচার শুরু করল বিজেপি।

চলতি মাসেই চন্দননগর-সহ ওই রাজ্যের একাধিক পুরনিগমের ভোট রয়েছে। সেই ভতের প্রচারেই ডেঙ্গু নিয়ে সরকারকে আক্রমণ করে অভিনব প্রচার করতে দেখা গিয়েছে পদ্ম শিবিরকে। মশারি টাঙিয়ে, তাঁর ভিতরে প্রার্থীকে নিয়ে প্রচার করলেন রাজ্য বিজেপির সম্পাদক এবং পরশুরার বিধায়ক বিমান ঘোষ।

এমনই ছবি দেখা গিয়েছে হুগলী জেলার চন্দননগর পুরসসভার এক নম্বর ওয়ার্ড এলাকায়। সেখানের বিজেপি প্রার্থী গোপাল চৌবের সমর্থনে মিছিল করেন বিধায়ক বিমান ঘোষ। মশারির ভিতরে প্রার্থীকে পাশে নিয়ে মিছিল করেন বিধায়ক বিমান। সেখান থেকেই সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি বললেন, “এলাকায় নিকাশির সমস্যা রয়েছে। যার ফলে মশাবাহিত রোগ বাড়ছে। কিন্তু পুরসভা উদাসীন। সেই কারণেই আমরা মশারি নিয়ে প্রচার করছি।”

Continue Reading

পশ্চিমবঙ্গ

মমতাকে গ্যালিলিও-র সঙ্গে তুলনা দেবাংশুর

Published

on

By

কলকাতা: নেত্রী মমতাকে কখনও দেবী কখনও মায়ের সঙ্গে তুলনা করেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্য। এবার সেই নেত্রী তথা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বিশিষ্ট বিজ্ঞানী তথা দার্শনিকের সঙ্গে তুলনা করলেন দেবাংশু। নিজের দাবির সমর্থনে দেখালেন জোরাল যুক্তি।

গত নভেম্বর মাসের ১৮ তারিখে হাওড়া জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কাশফুলকে বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহার করার কথা বলেন। শরতের সময়ে বাংলার বিভিন্ন জায়গায় কাশফুল দেখা যায়। সেই ফুল ব্যবহার করে বালিশ বা বালাপোশ তৈরির পরামর্শ দিয়েছিলেন মমতা। সেই অনুযায়ী কাজ শুরু করে উলুবেড়িয়ার বণিকসভা।

পরীক্ষামূলকভাবে উলুবেড়িয়াতে কাশফুল থেকে বালাপোশ তৈরি হয়েছে। সেই সঙ্গে বালিশ এবং আর অন্যান্য কিছু সামগ্রী তৈরির পরিকল্পনা করেছে সেখানের বণিকসভা। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই দলনেত্রীর হয়ে আসরে নেমেছেন তৃণমূলের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্য। তিনি বলেছেন, “গ্যালিলিও যখন বলেছিল “সূর্য স্থির, পৃথিবী ঘোরে”, তাকে একঘরে করে দেওয়া হয়েছিল। লোকে তাকে পাগল বলেছিল। সেদিন আজকের সোশ্যাল মিডিয়ার কাজটা করে ছিল সমাজের কিছু গণ্যমান্য ব্যক্তি। বাকিটা ইতিহাস। আজকের দিনে গ্যালিলিওর বিরোধিতাকারীদের ইতিহাস মনে রাখেনি। মনে রেখেছে গ্যালিলিওকে। বরং তার সমালোচকদের প্রাপ্তি একটাই, তাদের নাম গ্যালিলিওর নামের সাথে সম্পৃক্ত হয়ে আছে, ‘গ্যালিলিওর সমালোচক’ বলে।”

এরপরেই সরাসরি কাশফুল নিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমোর প্রশংসা এবং বিরোধীদের আক্রমণ করেছেন দেবাংশু। তিনি বলেছেন, “ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হয়। এবারও তার অন্যথা হল না। অবাক হব না যদি দেখি, আজ থেকে পাঁচ বছর পর সেই সমালোচকরা দামি শপিং মল থেকে “কাশফুলের বালিশ” কিনে তাদের ঘর সাজাতে ব্যস্ত হয়েছেন! এক সিপিএম কর্মী আমায় জিজ্ঞেস করেছিলেন, “দাদা কাশফুলের বালিশ কবে আসছে?”। মনে আছে, জবাবে তাকে বলেছিলাম, ‘নিশ্চিত ভাবে সিপিএম ক্ষমতায় আসার বহু আগেই..’।”

Continue Reading

পশ্চিমবঙ্গ

বাংলা কাঁপাতে পথে নামছে বিজেপির ‘বিবেক বাহিনী’

Published

on

By

সৌমেন শীল, কলকাতা: ক্ষমতা দখল অধরা রয়ে গেলেও হাল ছাড়তে নারাজ বিজেপি বংগ ব্রিগেড। পশ্চিমবঙ্গে যুব শাখা এবার চালু করতে চলেছে নয়া অভিযান। কোনও প্রকারের আন্দোলন বা বিক্ষোভ নয়, মানুষের পাশে থেকে সেবা করবে ওই রাজ্য বিজেপির যুব মোর্চা।

এই মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গ যুব মোর্চার সভাপতির পদে আসীন রয়েছেন ইন্দ্রনীল খাঁ। যিনি পেশায় চিকিৎসক। ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ হিসেবে তাঁর যথেষ্ট সুনাম রয়েছে। কর্মসূচি স্থির করতে তাই নিজের পেশাকেই হাতিয়ার করেছেন তিনি। ইন্দ্রনীল বাবুর নেতৃত্বে গঠিত ‘বিবেক বাহিনী’ তিরি হবে ডাক্তারদের নিয়ে। অতিমারির সময়ে বাড়ি বাড়ি গিয়ে করোনা সংক্রমিতদের চিকিৎসা পরিষেবা, ওষুধ, খাবার এবং অন্যান্য সামগ্রী পৌঁছে দেবেন ওই বাহিনীর সদস্যরা।

চিকিৎসা সংক্রান্ত পরিষেবার জন্য কলকাতায় একটি ২৪ ঘণ্টার পরিষেবাও চালু হচ্ছে। রাজ্যে যে কোনও প্রান্ত থেকে যে কোনও সময়ে ফোন করলে চিকিৎসকদের পরামর্শ পাওয়া যাবে। ঠিক হয়েছে রাজ্যস্তরে দু’টি হেল্পলাইন নম্বর থাকবে। একটি করোনা সংক্রান্ত চিকিৎসার জন্য এবং অপরটি আক্রান্ত গৃহবন্দীদের অন্যান্য সহযোগিতার জন্য। কাউকে হাসপাতালে ভর্তি করানো দরকার কি না সেটা যেমন বিবেক বাহিনীর সদস্যরা দেখবেন তেমনই বাড়ি বাড়ি ওষুধ থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী পৌঁছে দেবেন।

যুব মোর্চার সভাপতি ইন্দ্রণিল খানের নেতৃত্বে থাকছে ১০০ জন চিকিৎসকের একটি দল। দলের চিকিৎসক শাখার সকলকেই ওই পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত হওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। চলতি মাসের ১২ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে বিজেপির ‘বিবেক বাহিনী’র অভিযান। স্বামি বিবেকানন্দকে সম্মান জানাতে তাঁর জন্মদিনের দিন থেকেই যাত্রা শুরু করবে বিজেপির ‘বিবেক বাহিনী’।

Continue Reading

Trending