Connect with us

জাতীয়

হিজাবের কাছে হেরেছিল তৃণমূলের বাংলা, জিতল বিজেপির কর্ণাটক

Published

on

mamata basavraj

কলকাতা ও কর্ণাটক: হিজাব নিয়ে বিতর্কের জল গড়িয়েছে সুপ্রিম কোর্টে। কর্ণাটকের কলেজ বা অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গণ্ডি পেরিয়ে তা যায় হাই কোর্টে। সেখানে হিজাবের বিরুদ্ধে রায় দেন বিচারক। যার বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে গিয়েছেন মামলাকারীরা। এই নিয়ে উত্তাল হয়ে রয়েছে জাতীয় রাজনীতি। কিন্তু এই হিজাব বিতর্কের সূত্রপাত ঘটেছিল আর বছর পাঁচেক আগে। আর তা হয়েছিল বাংলার মাটিতেই।

২০১৭ সালের মার্চ মাস। পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দীগ্রাম বিধানসভার অন্তর্গত ধান্যখোলা আদর্শ বিদ্যাভবনে শুরু হয়েছিল হিজাব নিয়ে বড় বিতর্ক। সেই সময়ে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূলের সূর্য মধ্য গগণে। আর তখনও নন্দীগ্রামে বিধায়ক ছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। সেই সঙ্গে তিনি রাজ্যের মন্ত্রীও ছিলেন। যার জেরে স্কুলের মধ্যে চলে ভাঙচুর। সেই সঙ্গে প্রধান শিক্ষককেও মারধোর করা হয়। পরে হামলাকারীদের কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করা হয় ওই স্কুলের পধান শিক্ষককে।

ওই স্কুলের প্রধান শিক্ষক ছিলেন পবিত্র কুমার মাইতি। মাথায় ধর্মীয় ফেজ টুপি দিয়ে স্কুলে আসার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছিলেন তিনি। সেই সবই ছিল সাময়িক। ২০১৭ সালের মার্চে পরীক্ষার সময়ে স্কুলের ইউনিফর্মের বদলে ১৭ জন পড়ুয়া হিজাব এবং ফেজ টুপি পরে স্কুলে আসে। ঙ্খলাভঙ্গের কারণে প্রধান শিক্ষক ১৭ জনকে পরীক্ষায় বসার অনুমতি দিতে অস্বীকার করেন। প্রধান শিক্ষক পড়ুয়াদের বলেন, “এটা তো মাদ্রাসা নয়! তাই এখানে স্কুলের নির্দিষ্ট পোশাক পরেই আসতে হবে।”

শুরুতে পড়ুয়ারা তা মেনেও নিয়েছিল। কিন্তু সমস্যা হয় কয়েকদিন পরে। প্রধান শিক্ষক পবিত্রবাবুর ওই সিদ্ধান্তের পরিণতিতে সেই ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবারসহ এলাকার লোকেরা, স্থানীয় সংখ্যালঘু ধর্মগুরুরা ও সামসাবাদ পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান শেখ খুশনবীর নেতৃত্বে বিদ্যালয়ে হাজির হন। ভাঙচুর করা হয় চেয়ার, টেবিল, বেঞ্চ আর কম্পিউটার। বেধড়ক পেটানো হয় পবিত্রবাবুকেও।

ধর্মের মোহে নিমজ্জিত থাকা হামলাকারীরা স্কুলের শৌচালয় ভেঙে ফেলেছিল। কারণ ওই শৌচালয়ের দরজা ছিল পশ্চিমমুখী। এরপরে ঘটনাস্থলে পুলিশ আসে। সেই সঙ্গে আসেন পুলিশের বড়কর্তারা এবং মুসলিম সমাজের মাওলানা ও জামাত ইসলামের নেতারা। আপোসে বিষয়টির মীমাংসা হয়। প্রধান শিক্ষক নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করেন এবং মুসলিম ছাত্রছাত্রী ও মাওলানাদের সব দাবী মেনে নেন। সেই দাবিগুলি ছিল-
১) ছাত্রছাত্রীরা মুসলিম টুপি ও হিজাব পরে লাগিয়ে স্কুলে আসতে পারবে।
২) প্রতি শুক্রবার মুসলিম ছাত্রদের নামাজ পড়ার জন্য এক ঘন্টা ছুটি দেওয়া হবে।
৩) স্কুলে নবী দিবস পালিত হবে।
৪) শৌচালয়ের পুরো ভেঙে দিয়ে উত্তরমুখী করে দরজা বসানো হবে।

কানাঘুষো শোনা যায় যে প্রধান শিক্ষকের সকল দাবি মেনে নেওয়া এবং ক্ষমা চাওয়ার পিছনে রাজ্য প্রশাসনের শীর্ষ কর্তাদের প্রভাব ছিল। নির্দেশ গিয়েছিল খোদ নবান্ন থেকে। পশ্চিমবঙ্গ প্রশাসন মৌলবাদীদের দাবি মেনে নিয়েছিল। কিন্তু কর্ণাটকের ক্ষেত্রে তা হয়নি। বিজেপি পরিচালিত ওই রাজ্যের সরকার নিজেদের অবস্থানে অনড় রয়েছে। কোনও অবস্থাতেই মৌলবাদীদের দাবি মেনে নেয়নি।

জাতীয়

মহিলা নয়, পুরুষদের সহায়ক বোরখা: তসলিমা

Published

on

By

নয়াদিল্লি: মহিলাদের শরীর ঢাকা হয় বোরখার মাধ্যমে। যাতে তাঁদের সম্ভ্রম বজায় থাকে। কিন্তু বোরখার দ্বারা কোনও উপকার হয় না মহিলাদের। উলটে পুরুষেরা উপকৃত হচ্ছে বোরখার মাধ্যমে। এমনই দাবি করলেন বাংলাদেশের নির্বাসিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন। নিজের মন্তব্যের স্বপক্ষে দিলেন জোরাল যুক্তি।

ইসলামিক রেওয়াজ এবং ইসলাম নিয়ে বরাবরই সরব হয়েছেন লেখিকা তসলিমা নাসরিন। যে কোনও ধর্মীয় মৌলবাদের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেলেও ইসলামের বিরুদ্ধে যেন তাঁর বিদ্বেষ একটু বেশি। যা বিভিন্ন সময়ে ফুটে উঠেছে তাঁর লেখা এবং বক্তব্যে। তেমনই এবার বোরখার বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেল লজ্জার লেখিকাকে।

বোরখা হলো মহিলাদের এক ধরনের বহিরাঙ্গিক পোশাক যা সারা শরীর ঢেকে রাখে। ইসলামী শরিয়ত অনুযায়ী পর্দা বজায় রাখার স্বার্থে প্রাপ্তবয়স্ক মুসলিম নারীরা ঘরের বাইরে, বিশেষ করে পুরুষমহলে, যাওয়ার সময় এটি পরিধান করে থাকেন।

কর্ণাটকের হিজাব নিয়ে বিতর্কের রেশ না কাটতেই শনিবার বোরখার অপকারিতা নিয়ে সরব হলেন তিনি। তসলিমা দাবি করেছেন যে বোরখার সাহায্যে মহিলার কোনও উপকার হয় না। উলটে পুরুষেরা বোরখা ব্যবহার করে অনৈতিক কাজ করে থাকে। সেই কারণেই বাংলাদেশের পুরুষেরা বোরখাকে বাধ্যতামূলক করতে সচেষ্ট হয়েছেন।

টুইট করে তিনি লিখেছেন, “বাংলাদেশের পুরুষরা বোরখা বাধ্যতামূলক করতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। বোরকা নারীদের তুলনায় পুরুষদের অনেক বেশি সাহায্য করে। পুরুষরা তাদের মুখ লুকিয়ে রাখতে পারে। সেই সঙ্গে চুরি হওয়া জিনিসপত্র, বোরখার নিচে অবৈধ মাদক লুকিয়ে পাচার করতেও পারে।” সেই সঙ্গে তসলিমা আরও জানিয়েছেন যে বোরখা নারীদের ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন থেকে রক্ষা পেতে সাহায্য করতে পারে না।

Continue Reading

জাতীয়

উপাচার্যকে গালি তৃণমূলের, বিক্ষোভে বিজেপি

Published

on

By

Aliah University

কলকাতা: বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে মা তুলে অশ্রাব্য গালি তৃণমূলের ছাত্রনেতার। সেই সঙ্গে হত্যার হুমকি দেওয়া হল ওই উপাচার্যকে। আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই ঘটনায় প্রশ্ন উঠছে পশ্চিমবঙ্গের সংস্কৃতি নিয়ে। অভিযুক্ত যুবক এখন আর দলে নেই বলে দায় এড়াল তৃণমূল।

চেয়ারে বসে রয়েছেন আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মহম্মদ আলি। তাঁকে ঘিরে রয়েছে জনা কয়েক বিক্ষুব্ধ ছাত্র। যারা অত্যন্ত কুরুচিকর ভাষায় আক্রমণ করে চলেছে উপাচার্যকে। যাদের নেতৃত্বে রয়েছে তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নেতা গিয়াসুদ্দিন মন্ডল। প্রথমে চড় মারার হুমকি, তারপরে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেওয়া হল। ফোন আটকে রেখে ছাত্রদের পায়ে ধরে ক্ষমা চাওয়ার দাবিও তুলল ওই ছাত্ররা।

শনিবার বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই সরব হয়েছে বিরোধী বিজেপি। রবিবার সকালে উপাচার্যের হেনস্থার প্রতিবাদে পশ্চিমবঙ্গের হুগলী জেলায় বিক্ষোভ দেখায় বিজেপি। সেই বিক্ষোভ থেকে দাবি উঠল শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগের। সেই সঙ্গে আচার্য হিসেবে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখার জন্য রাজ্যপালকে হস্তক্ষেপ করার দাবিও তুললেন বিজেপি হুগলী জেলা সভাপতি তুষার মজুমদার।

অভিযুক্ত গিয়াসুদ্দিনের সঙ্গে এখন সংগঠনের আর কোনও সম্পর্ক নেই বলে দাবি করেছে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। গিয়াসুদ্দিনের ওই কীর্তিকে দল সমর্থন করে না বলেও দাবি করেছে ঘাস ফুল শিবির। তৃণমূলের মুখপাত্র দেবাংশু ভট্টাচার্য ফেসবুকের দেওয়ালে লিখেছেন, “ভিডিওটা দেখে গা গুলিয়ে উঠল। বমি পাচ্ছে! আসে পাশে গভীর পচন ধরেছে। শিক্ষাগুরু সম্পর্কে এমন ভাষা! কল্পনাও কি করা যায়? ছিঃ! অনতিবিলম্বে শিক্ষক, শিক্ষিকাদের হাতে লাঠি, বেত ফিরে আসা খুব প্রয়োজন…”

Continue Reading

জাতীয়

বাম-তৃণমূলের নেতৃত্বে শ্রীলঙ্কার পথে হাঁটছে কেরল-বাংলা

Published

on

By

ভয়াবহ অর্থনৈতিক সঙ্কটের মধ্যে পড়েহে রাবনের রাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা। খালি হয়ে গিয়েছে রাজ কোষ। ঋণ দিচ্ছে না কেউ। সরকারি ঘোষণা করে দিনের মধ্যে সাড়ে সাত ঘণ্টা বন্ধ রাখা হচ্চে বিদ্যুৎ পরিষেবা। রাষ্ট্রকে সচল রাখতে ভারতের থেকে জ্বালানী সাহায্য নিতে হয়েছে। এক দিনে যে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়নি তা বলাই বাহুল্য। আর পড়শি রাষ্ট্র শ্রীলঙ্কার এই প্রতিকূলতা যেন সিঁদুরে মেঘ পশ্চিমবঙ্গ এবং কেরলের কাছে।

কেরলে পর্যটন ছাড়া অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির বড় কোনও উৎস নেই। উৎপাদন শিল্প নেই বললেই চলে। শ্রীলঙ্কার কায়দাতেই সরকার পরিচালিত হয় কেরল রাজ্যে। আকর্ষণীয় মিল রয়েছে কাছাকাছি থাকা ভারতের রাজ্য এবং পড়শি রাষ্ট্রের। দুই ক্ষেত্রেই উৎপাদন শিল্প এবং উচ্চ-পর্যায়ের পরিষেবার অভাব রয়েছে। সেই সঙ্গে আয়ের বড় উৎস পর্যটনের যোগ্য নেতৃত্ব নেই। এমনকি প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী আমদানি করা হয়। সরকার চালাতে বিপুল ঋণ নিতে হয়। রেমিট্যান্স নির্ভরতা শ্রীলঙ্কার জটিলতার বড় কারণ। যা দেখে অনেকেই বলছেন যে শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক সংকট অবশ্যই ‘কেরালা মডেল’ প্রবক্তাদের জন্য একটি নম্র অভিজ্ঞতা হবে।

ভারতের মতোই সাত দশক আগে শ্রীলঙ্কা ঔপনিবেশিক শাসনমুক্ত হয়েছে। সিংহলি বিত্তশালী ব্যক্তিরা বরাবর চেয়েছেন ঔপনিবেশিক স্থিতাবস্থা টিকে থাকুক সমাজে। ভূরাজনৈতিক স্বার্থে কিছু ‘দাতা’ সিংহলি প্রভাবশালী ব্যক্তিদের রাষ্ট্রক্ষমতায় মদদত দিতে দিতে ওই স্থিতিশীলতার ভেতর প্রায় রাজতন্ত্র কায়েম করে দিয়েছে। এই নব্য রাজপরিবার আয়-ব্যয়ের জরুরি হিসাব ছাড়াই বিশাল বিশাল বন্দর, রাস্তা, ভবন বানিয়ে জনগণকে মোহাচ্ছন্ন রাখার কৌশল নিয়েছিল। বিশেষজ্ঞদের মতে পূর্বাপর বিবেচনাহীন এ উন্নয়ন-নীতির শিকার শ্রীলঙ্কা।

পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রেও বিষয়টা খানিকটা একই রকমের। সুন্দর করে সাজানো হয়েছে শহর থেকে গ্রাম। অনেক সামাজিক প্রকল্পের মাধ্যমে আর্থিক সাহায্য দেওয়া হচ্ছে মানুষকে। সেই প্রকল্পের জন্য ঋণ নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু উৎপাদন শিল্পের দেখা নেই। যার কারণে নতুন করে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধশালী হওয়ার উপায় নেই। শিল্পের মাধ্যমে কর্মসংস্থান বাড়বে এবং রাজ কোষ ভরে উঠতে পারে। সেদিকে নজর দিচ্ছে না তৃণমূল পরিচালিত রাজ্য সরকার। যার জেরে অদূর ভবিষ্যতে শ্রীলঙ্কার মতোই দড়াবস্থার মুখোমুখী হতে পারে পশ্চিমবঙ্গ।

শ্রীলঙ্কা বৈদেশিক মুদ্রা খরচ না করে ডলারের বিপরীতে নিজেদের মুদ্রার অবমূল্যায়ন করেছে শ্রীলঙ্কার কেন্দ্রীয় ব্যাংক, শ্রীলঙ্কার মুদ্রার বিপরীতে ক্রমাগত ডলারের দাম বাড়ায় পণ্য আমদানি কমে গিয়েছে। ফেব্রুয়ারির শেষে শ্রীলঙ্কান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ মাত্র ৭৩৪ মিলিয়ন ডলারে ঠেকেছে। কিন্তু চলতি বছরেই দেশটিকে ৬ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারের ঋণ ও সুদ পরিশোধ করা লাগবে। দেশটির বৈদেশিক ঋণের পরিমাণ এতটাই বেড়ে গেছে যে মোটা অঙ্কের ঋণ পরিশোধ করতে পারছে না।

দেশটির বিদ্যুৎ উৎপাদনের বেশির ভাগই গ্যাস ও তেলনির্ভর। কিন্তু চাহিদা অনুযায়ী তেল-গ্যাস না পাওয়ায় বিদ্যুৎ উৎপাদন কমেছে। হাতে থাকা ডলারগুলো ধরে রাখতে সরকার বহু পণ্যের আমদানি নিয়ন্ত্রণ করছে। এতে বাজারে সেসব পণ্যের দাম গেছে বেড়ে। শ্রীলঙ্কার অর্থনীতির একটি উৎস পর্যটন। কিন্তু কোভিড-১৯ মহামারির কারণে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনের প্রধানতম এ খাত থেকে আয় কমে গিয়েছিল। প্রবাসী নাগরিকদের পাঠানো রেমিট্যান্সও কমেছে।

পশ্চিমবঙ্গ সরকার ঋনের চাপে জর্জরিত হয়ে রয়েছে। যার কারণে অনেক সরকারি নিয়োগ বন্ধ হয়েছে। সামাজিক ভাতায় খরচ করতে গিয়ে পরিকাঠামোগত উন্নয়ন হচ্ছে না। খনি এবং বন্দর নির্ভরতার জেরে অর্থনীতি টিকে থাকলেও বৃদ্ধি নেই। উলটে খরচ বাড়ছে। এই অবস্থায় শ্রীলঙ্কাকে দেখে শিক্ষা নেওয়া প্রয়োজন বলেই মনে করছেন অনেকে। ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় হয়তো শ্রীলঙ্কার মতো অবস্থা হবে না বাংলা বা কেরলের। কিন্তু জটিলতা কিছু কম হবে না।

Continue Reading

Trending